মঙ্গলবার ২১ নভেম্বর ২০১৭
  • প্রচ্ছদ » Box 1 » নেপালে ক্ষমতার পালাবদল হচ্ছে! চীনের প্রভাব নিয়ে চিন্তিত ভারত


নেপালে ক্ষমতার পালাবদল হচ্ছে! চীনের প্রভাব নিয়ে চিন্তিত ভারত


সংবাদ সমগ্র - 22.10.2017

মাছুম বিল্লাহ : নেপালের সাধারণ নির্বাচনে ক্ষমতায় আসতে চলেছে বামপন্থীরা। ক্ষমতায় এলে তারা ভারতের বদলে চীনের সঙ্গেই সুসম্পর্ক বজায় রাখবে। ফলে আগামী বছরের শুরু থেকেই হিমালয়ের এই গুরুত্বপূর্ণ দেশটি ভারতের মাথাব্যথার কারণ হতে পারে।

এমনটি জানিয়ে ‘অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ’ ছাপ দেওয়া একটি রিপোর্ট ভারতের প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে পাঠিয়েছে দেশটির সর্বোচ্চ গোয়েন্দা সংস্থা রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালিসিস উইং বা ‘র’।

র’রওই রিপোর্টে বলা হয়েছে, আগামী ২৬ নভেম্বর নেপালের সাধারণ নির্বাচনের পরেই একসঙ্গে মিশে যেতে চলেছে তিনটি বামপন্থী দল। আসন্ন নির্বাচনে ওই তিনিটি বাম দল সিপিএন (ইউএমএল) এবং নয়া শক্তি পার্টির মধ্যে নির্বাচনী জোট গঠিত হয়েছে। একসঙ্গে মিশে যাওয়ার প্রক্রিয়াটি দ্রুত সম্পন্ন করতে তিনটি পার্টির নেতাদের নিয়ে একটি কো-অর্ডিনেশন কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

গত মে মাসে অনুষ্ঠিত নেপালের পৌরসভা নির্বাচনের ফলাফলে বামঝড়ে কার্যত উড়ে গিয়েছে নেপালি কংগ্রেস। ফলে সাধারণ নির্বাচনে নেপালের ক্ষমতা দখলের প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে বামপন্থীদের। নেপালে বামপন্থীরা ক্ষমতায় এলে ভারতের বিজেপি সরকারের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক ভালো হবে না। আন্তুর্জাতিক ক্ষেত্রে ভারসাম্য বজায় রাখতে নেপাল তখন চীনের দিকেই ঝুঁকবে। ফলে নেপালের রাজনীতির ওপরে ভারতের নিয়ন্ত্রণ ক্রমশই কমবে এবং নেপালকে কেন্দ্র করে ভারতের বিরুদ্ধে চীন তাদের ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত কার্যকলাপ’ চালিয়ে যাবে।

র’য়ের ওই রিপোর্টে বলা হয়েছে, আগামী বছরের ২১ জানুয়ারির মধ্যে নেপালের নবগঠিত সংসদে নতুন প্রজাতান্ত্রিক সংবিধান পেশ করতে হবে। এই সংবিধান চালু হলেই আনুষ্ঠানিকভাবে রাজতন্ত্রের অবসান ঘটবে এবং তথাকথিত ‘হিন্দুরাষ্ট্র’-এর তকমাও মুছে ফেলবে নেপাল। নেপালের বামপন্থীদের সঙ্গে সিপিএম এবং কংগ্রেসের একটি অংশের সুসম্পর্ক থাকলেও বিজেপির সঙ্গে তাদের গভীর মতাদর্শগত বিরোধিতা রয়েছে। এই বিরোধিতারই ছাপ দুদেশের কুটনৈতিক সম্পর্কের ওপরে পড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলির মধ্যে নেপাল এবং ভুটান অবস্থানগত কারণে ভারতের কাছে অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ। ভুটান ও ভারত সংলগ্ন ডোকালাম সীমান্তে চীনের সঙ্গে এমনিতেই উত্তেজনা জারি রয়েছে। তার পরে নতুন করে নেপাল মাথাব্যথার কারণ হলে সমস্যা গুরুতর আকার নিতে পারে।

টানা একদশকের গৃহযুদ্ধের সময় পুষ্পকুমার দহাল ওরফে প্রচ-র নেতৃত্বাধীন মাওবাদীদের সঙ্গে সিপিএন(ইউএমএল)-এর একদমই সুসম্পর্ক ছিল না। এই দুটি দলের একীভূত হওয়ার প্রস্তাবকে রীতিমতো অপ্রত্যাশিত বলে ভাবছে রাজনৈতিক মহল। নয়াশক্তি পার্টি গড়ে উঠেছে গত একবছর আগে। প্রচন্ডর সঙ্গে মতভেদের জেরে মাওবাদী দল ছাড়েন একদা তার ডানহাত বুবুরাম ভট্টরাই। তিনিই নয়াশক্তি পার্টি গঠন করেন। এই তিনটি রাজনৈতিক দল মিশে গেলে তারা কার্যত অপ্রতিরোধ্য শক্তি হয়ে উঠবে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।-দৈনিক যুগশঙ্খ।




Loading...
সর্বশেষ সংবাদ


Songbadshomogro.com
Contact Us.
Songbadshomogro.com
452, Senpara, Parbata, Kafrul
Mirpur, Dhaka-1216


close