সোমবার ১১ ডিসেম্বর ২০১৭
  • প্রচ্ছদ » Box 1 » ‘কবর জিয়ারত করতেও পুলিশের অনুমতি লাগে


‘কবর জিয়ারত করতেও পুলিশের অনুমতি লাগে


সংবাদ সমগ্র - 24.08.2017

অলিখিত ভাবে রাজনৈতিক কার্যকলাপ আওয়ামীলীগ নিষিদ্ধ করে দিয়েছে এমন মন্তব্য করে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও কেন্দুয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি ড.রফিকুল ইসলাম হিলালী বলেন, আমরা যদি কোনো কবর জিয়ারত করতে যাই সেখানেও পুলিশের অনুমতি লাগে। কবর জিয়ারত করতে গেলে থানাকে জানিয়ে যেতে হয়। এছাড়া মিছিল মিটিং তো নিষিদ্ধই বলা চলে বাংলাদেশে।


সম্প্রতি এ প্রতিবেদককে দেয়া এক সাক্ষাতকারে তিনি এসব কথা বলেন।
শুধু মাত্র জানাজায় গেলে পুলিশ বাধা দেয় না জানিয়ে তৃণমূলে জনপ্রিয় বিএনপির এ নেতা বলেন, একটা জায়গায় পুলিশ বাধা দিতে পারে না। যখন জানাজায় যাই। সেই ক্ষেত্রে এই সুবিধাটা আমি গ্রহণ করি। যখন শুনি এলাকায় কোনো লোক মারা গেলো। তখন আমি ঢাকা থেকে গিয়ে জানাজায় অংশ নেই। আর তা ছাড়া নেতাকর্মীরাও আমার আসার খবর শুনে সাক্ষাতের জন্য চলে আসে। এতে একটা কাজ হয় প্রতিটি মৃত ব্যক্তির জানাজায় লোক সংখ্যা অনেক বেড়ে যায়।
জানাজা এখন জনগণের সঙ্গে জনসংযোগের এটি নিরাপদ মাধ্যম বলে জানান তিনি।
বন্যার্তদের ত্রাণ দিতে গিয়েও পুলিশি বাধার কথা জানিয়ে বিএনপির ক্লিন ইমেজের এ নেতা বলেন, বন্যার সময় আমি ত্রাণ দিবো, সেটাতেও পুলিশ বাধা দেয়। পরে আমি ইউএনও সাহেবকে বললাম, ত্রাণগুলো আমার নিজের দেয়ার দরকার নেই। আপনি নিয়ে বিতরণ করেন। গরিব মানুষরা যেন অন্ততপায়।
রাজনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনায় যতটুকু না আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে বাধা দেয়া হচ্ছে তার চেয়ে বেশি বাধা দেয়া হচ্ছে পুলিশের পক্ষ থেকে জানিয়ে ড.হিলালী বলেন, রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করতে গিয়ে আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে তেমন কোনো বাধা দেয়া হয়নি। কিন্তু পুলিশ বাধা দিচ্ছে। যখন পুলিশ আমাদের ওপর হামলা করে তখন হয়তো আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরাও তাদের সঙ্গে লাঠি রামদা নিয়ে আসে। আওয়ামীলীগ থেকে মূখ্য ভূমিকা পালন করে পুলিশ।
টিয়ার শেলের আঘাতে সারা জীবনের জন্য অন্ধ হয়ে যাওয়া তিতুমির কলেজের শিক্ষার্থী সিদ্দিকুর রহমানের বিষয়ে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সাবেক এ সভাপতি বলেন, আন্দোলনটা ছিলো তাদের পরীক্ষার রুটিন দেয়ার দাবিতে। তারা পরীক্ষা দেয়ার জন্য দাবি জানিয়েছিলো। কারণ নির্দিষ্ট সময়ে পরীক্ষা দিতে না পারলে বয়সোত্তীর্ণ হয়ে যাচ্ছে। তাই পরীক্ষার তারিখটা ঘোষণা করা হোক। এটা কোনো সরকারের বিরুদ্ধেও আন্দোলন ছিলো না। এই শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশ টিয়ার গ্যাস লাঠিচার্জ করে অবর্ণনীয় ভাবে নির্যাতন করলো ছাত্রদেরকে। যার কারণে সিদ্দিকুর রহমানের চোখ পর্যন্ত অন্ধ হয়ে গেলো।
সরকারের বিরুদ্ধে আপনি যখন মিছিল করতে যাবেন পুলিশ সরাসরি গুলি করে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখানে কোনো রাজনৈতিক পরিবেশই নাই। তারপরেও এ অবস্থার মধ্যে থেকে আমার দল প্রতিবাদ করে যাচ্ছে। শান্তিপূর্ণ ভাবে আমরা এই প্রতিবাদ অব্যাহত রাখবো।
শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মৃত্যু বার্ষিকীতেও পুলিশি হামলার কথা জানিয়ে ড. হিলালী বলেন, শান্তিপূর্ণ ভাবে মিলাদও পড়া যায় না। পুলিশ এসে হাড়ি পাতিল নিয়ে যায়। গতবছর আমরা যখন মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভার আয়োজন করলাম, পুলিশ এসে বাধা দিলো। হামলা করলো। ছত্রভঙ্গ না হওয়ায় পুলিশ আওয়ামীলীগ অস্ত্রসহ হামলা করলো। পরে পুলিশ মামলা দিলো আমাদের কয়েকশ নেতা কর্মীর নামে। হামলা করলো পুলিশ আর মামলা করলো আমাদের বিরুদ্ধে।
দ্রব্যমূল্যেরর উর্দ্ধগতি, আইনশৃংখলার অবনতির প্রতিবাদে রাস্তায় নামবেন, কার কাছে বলবেন এমন প্রশ্ন রেখে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের এ সদস্য বলেন, আন্দোলন সংগ্রামের কোনো সুযোগই তো নাই। মিলাদ মাহফিলেরই আপনি কোনো সুযোগ পাচ্ছেন না। হামলা করছে। যখন প্রশাসন ও পুলিশি নির্যাতন বা সরকারি দলের নেতাকর্মীদের দ্বারা নারী ধর্ষণের বিরুদ্ধে আপনি কথা বলবেন সরাসরি তারা গুলি করে।
নিজ নির্বাচনী এলাকায় (নেত্রকোনা-৩) গেলে সার্বক্ষণিক পুলিশি পহারায় থাকতে হয় বলেও জানান আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয় থাকা বিএনপির ত্যাগী এই নেতা।




Loading...
সর্বশেষ সংবাদ


Songbadshomogro.com
Contact Us.
Songbadshomogro.com
452, Senpara, Parbata, Kafrul
Mirpur, Dhaka-1216


close