সোমবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭


কোনো বস্তুকে কুলক্ষণে মনে করা শিরক


সংবাদ সমগ্র - 06.06.2017

সাইদর রহমান : আমাদের সমাজে বিভিন্ন জিনিসকে বিভিন্ন ধরণের অলক্ষণ কুলক্ষণ মনে করার কুসংস্কার রয়েছে। ইসলামের দৃষ্টিতে অলক্ষণ কুলক্ষণ বলতে কিছু নেই। নেই সংক্রামক নামের কোন পদার্থ। এ ধরণের বিশ্বাস সম্পূর্ণ শিরক। এ ধরনের কুলক্ষণের কোনো ভিত্তি নেই। বাস্তবতা নেই। সত্যতা নেই। লোকেমুখে যা শোনা যায় তাই বিশ্বাস করা হয়। এ ধরণের কুলক্ষণ কুসংস্কার থেকে সবাইকে বিরত থাকতে হবে।


হযরত আবু তাহির ও হারমালা ইবন ইয়াহইয়া (র) আবু হুরায়রা (রা) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা) ইরশাদ করেন, সংক্রামক ব্যাধি, ক্ষুধায় পেট কামড়ানো কীট (বা কল্যাণ মনে করে সফর মাসকে অগ্রপশ্চাৎকরণ) ও পাখির কুলক্ষণ বলতে কিছু নেই। তখন এক বেদুঈন আরব বলল, ইয়া রাসুলুল্লাহ (সা)! তা হলে সে উট পালের অবস্থা কি, যা কোন বালূকাময় ভূমিতে থাকে যা নিরোগ, সবল।
তারপর সেখানে পাচড়া আক্রান্ত (কোন) উট এসে তাদের মাঝে ঢুকে পড়ে তাদের সবগুলিকে পাঁচড়ায় আক্রান্ত করে দেয়? তিনি বলেন, তা হলে প্রথম (উট)-টিকে কে সংক্রামিত করেছিল? (সহীহ মুসলীম, হাদীস নং- ৫৫)
মুসলিম কোন বস্তু বা ঘটনাকে অশুভ লক্ষণ বলে মনে করে না। কোন স্থান, প্রাণী বা ব্যক্তি বিশেষের কারণে কোন অমঙ্গল আসে না। কারণ সমস্ত মঙ্গল-অমঙ্গলের মালিক একমাত্র আল্লাহ্ এবং সব কিছুই আল্লাহ্র পক্ষ হতে।
পেঁচা অথবা অন্য কোনো প্রাণী অশুভ নয়। কুকুর ও বিড়াল কান্না করলে, দুপুরবেলায় কাক ডাকলে, কোথাও বের হওয়ার সময় হোঁচট খেলে, রাতে অথবা দিনে পেঁচা ডাকলে কোনো দুর্ঘটনা ঘটবে বা কেউ মারা যাবে ইত্যাদি মনে করা শিরক। কোনো দিন, মাস অথবা সময় অশুভ নয়। যদি কেউ বিশ্বাস করে অমুক দিবস, রাত্রি, মাস, সময়, বস্তু, দ্রব্য বা ব্যক্তির মধ্যে শুভ বা অশুভ কোনো প্রভাবের ক্ষমতা রয়েছে অথবা এরুপ প্রভাব কাটানোর ক্ষমতা রয়েছে তবে তা শিরকে আকবর।
কারো নিকট কোনো কিছু অশুভ মনে হলে সে আল্লাহ্র উপর ভরসা করবে এবং উত্তম কথা বলবে। রাসুল (সঃ) বলেন, শুভ-অশুভ বলে কিছু নেই। তবে শুভ আলামতই আমার নিকট পছন্দনীয় আর তা হল উত্তম বাক্য। বুখারি -৫৭৭




Loading...
সর্বশেষ সংবাদ


Songbadshomogro.com
Contact Us.
Songbadshomogro.com
452, Senpara, Parbata, Kafrul
Mirpur, Dhaka-1216


close